ঝাড়গ্রাম জেলা জুড়ে ডেঙ্গুর প্রকোপ

Print This Post Print This Post
16

প্রান্তিক মৈত্র, ঝাড়গ্রাম : ঝাড়গ্রাম জেলা ডেঙ্গুর প্রকোপ। ইতিমধ্যেই জেলায় তিন জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। যদিও ঝাড়গ্রাম জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের আধিকারিক দের বক্তব্য, আগের বছরগুলোর তুলনায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত সংখ্যা অনেক কমে গিয়েছে। তবুও ঝাড়গ্রামে ডেঙ্গু আক্রান্ত নিয়ে ছড়িয়েছে আতঙ্ক। পাশাপাশি ঝাড়গ্রাম শহরের বিভিন্ন জায়গায় জমা জলে মশার লার্ভা জন্মাচ্ছে বলে বাসিন্দাদের অভিযোগ। অথচ পুরসভার পক্ষ থেকে নিয়মিত বিভিন্ন ওয়ার্ডে মশার স্প্রে করা হয় না বলে অভিযোগ। এই বিষয়ে ঝাড়গ্রাম জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক, আশ্বিনী কুমার মাঝি বলেন, জেলায় বেসরকারি ল্যাবরেটরি মারফত রিপোর্ট পাওয়া গিয়েছে তিনজনের ডেঙ্গু ধরা পড়েছে। তবে এরা কেউই সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করাননি। আগের থেকে ডেঙ্গুর প্রকোপ জেলায় অনেক কম। স্বাস্থ্য দপ্তর নিরন্তর প্রচার চালাচ্ছে। মশার লার্ভা ধ্বংসে এক লক্ষ গাপ্পি মাছ ছাড়া হয়েছে আরো দেড় লক্ষ ছাড়া হবে।
স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, ঝাড়গ্রাম জেলার ঝাড়গ্রাম শহর, ঝাড়গ্রাম ব্লকের মোহনপুর এবং জামবনি তে মোট তিন জনের দেহে মিলেছে ডেঙ্গুর জীবাণু। যদিও এটা কেউই সরকারি কোনো হাসপাতালে ভর্তি হয়নি। বেসরকারি ল্যাবরেটরি তে পরীক্ষায় ধরা পড়েছে। ঝাড়গ্রাম জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৭ সালে ঝাড়গ্রাম জেলায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন ৫৩ জন। ২০১৮ তে সেই সংখ্যা দাঁড়ায় ১৮। দু’বছর এই মৃত্যুর কোন ঘটনা ঘটেনি। ২০১৯ তথা চলতি বছরে এখনও পর্যন্ত ডেঙ্গু ধরা পড়েছে তিনজনের দেহে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী জেলায় ডেঙ্গুর প্রকোপ কমেছে বলে মনে করছে স্বাস্থ্য দপ্তর। ডেঙ্গু ঠেকানোর জন্য জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের উদ্যোগে সচেতনামূলক লাগাতার কর্মসূচি চলছে। জমা জল যাতে না থাকে তার জন্য বিভিন্ন ধরনের সচেতনতামূলক প্রচার চালাচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তর। সম্প্রতি ঝাড়গ্রাম জেলার ঝাড়গ্রাম, বিনপুর, জামবনি, সাঁকরাইল, এই চার ব্লকে পঁচিশ হাজার করে মোট এক লক্ষ গাপ্পি মাছ ছাড়া হয়েছে মৎস্য দপ্তর, বুড়ো প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য দপ্তরের যৌথ উদ্যোগে। এছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় মশা মারার স্প্রে করা হচ্ছে। গতবছর কন্যাশ্রী দের মশাবাহিত রোগের বিরুদ্ধে প্রচারে নামানো হয়েছিল। এত প্রচারের মধ্যেও ঝাড়গ্রাম শহরে বিভিন্ন স্থলে সরকারি আবাসন, অফিস চত্বর সহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে যেখানে সেখানে জল জমে থাকে। সেখানেই জন্মাচ্ছে মশার লার্ভা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

5 × two =