‘গোটা বিশ্বেই ছড়িয়ে পড়বে করোনাভাইরাস’

Print This Post Print This Post
168

সৌরভ দত্ত : চিনের উহান থেকে যাত্রা শুরু। শনিবার পর্যন্ত অ্যান্টার্কটিকা বাদে বাকি মহাদেশগুলির ৫৯টি দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে। দিন যত গড়াচ্ছে একের পর এক দেশে থাবা বসাচ্ছে মারণ ভাইরাস। বিশ্বজুড়েই চরম আতঙ্কে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। তার মধ্যেই দুংসংবাদ শোনালেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রেইয়েসুস। তাঁর কথায়, ‘গোটা বিশ্বেই ছড়িয়ে পড়বে করোনাভাইরাস। কোনও দেশই মারণ ভাইরাসের থাবা থেকে বাঁচবে না। তাই প্রতিটি দেশকেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ‘সর্বোচ্চ সতর্কতা’ নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।’ শনিবার পর্যন্ত কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন ২৯২৩ জন। আক্রান্ত ৮৫ হাজার ১৭৩ জন। দক্ষিণ কোরিয়ায় পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠছে। শুক্রবার দেশটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৩৯ জন। কাতারে প্রথম করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীকে শনাক্ত করা হয়েছে। ইতালিতে এদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত ২১ জন মারা গিয়েছেন। আক্রান্ত হয়েছেন ৮২০ জন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও বেশ কয়েকজনকে মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত বলে সন্দেহের কারণে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। অন্যদিকে, লন্ডনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে কী-কী পদক্ষেপ নেওয়া হতে পারে, সে বিষয়ে ‘লন্ডন এক্সট্রা ডেথস ফ্রেমওয়ার্ক’ নামে সরকারি এক নথি ফাঁস করেছে ব্রিটেনের নামী সংবাদপত্র ডেইলি স্টার। ওই নথি অনুযায়ী, লন্ডনে মারণ ভাইরাস ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন প্রশাসনের শীর্ষ আধিকারিকরা। এমনকি মহামারীর চেহারা নিলে অন্তত ৪০ হাজার মানুষের প্রাণহানি ঘটতে পারে বলে তাঁদের অনুমান। তাই পরিস্থিতি সামলাতে তাই ৪০ হাজার গণকবর তৈরির প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জনরোষ কিংবা গণবিক্ষোভ ঠেকাতে সামরিক বাহিনী মোতায়েনের মাধ্যমে ওই কাজ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 × 3 =